জীবন উন্নয়নের জন্য ১০টি কাজ!

টাইম ম্যাগাজিনে আজ একটা লেখা পড়লাম। লেখাটার শিরোনাম ছিল “তোমার জীবনের উন্নয়নের জন্য প্রতিদিনকার ১০টি কাজ।
আমি কেবল পয়েন্টগুলো এখানে উল্লেখ করছি। নিজে যা বুজলাম তাই লিখছি। কারো বিস্তারিত পড়তে ইচ্ছে হলে, নিচের দেয়া লিংক এ গিয়ে পড়তে পারেন।

১. প্রকৃতির সান্নিধ্যে থাকা
এখানে বলা হচ্ছে, প্রকৃতির সন্নিকটে থাকার কারণে একজন মানুষ চাপমুক্ত হতে পারেন। সৃজনশীল হন, প্রকৃত উন্নত স্মৃতির জন্য সহায়ক। এখানে আমি যুক্ত করবো, ভালো প্রকৃতি। সবুজ প্রকৃতি।

২. ব্যায়াম
শরীর ভালো রাখে জানার পরও আমরা অনেকেই এটা করি না। স্বাস্থ্যকর বিষয় বাদেও ব্যায়াম মানুষকে সুখী করে, ভালো ঘুম হওয়ার কারণ। আমি যুক্ত করবো, হাঁটাহাটি করা, সাইকেল চালানো ভালো ব্যায়াম।

৩. পরিবার পরিজন এবং বন্ধুবান্ধবদের সময় দেয়া
দীর্ঘজীবি মানুষদের জীবন পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে তারা সারা জীবন ভালো সম্পর্ক তৈরি করে গেছেন। প্রচুর মানুষদের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রেখেছেন। একাকিত্ব খারাপ জিনিস। ভালো জিনিস/খবর শেয়ার করার মাধ্যমে ভালো সম্পর্ক বাড়ে। মূল কথা, বন্ধু বাড়ান, পরিবার পরিজনদের সময় দিন।

৪. কৃতজ্ঞতা স্বীকার
কৃতজ্ঞতা স্বীকার মানুষকে সুখী করে। কৃতজ্ঞ মানুষের দ্বারা ভালো সম্পর্কও তৈরি হয়। ভালো মানুষ হতে হলে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা শিখতে হবে এবং করতেও হবে। যেকোন সাধারণ বিষয় নিয়ে কৃতজ্ঞতা দেখানো যায়। শুধু হাসি মাখা মুখে ধন্যবাদ জানিয়েও কৃতজ্ঞতা জানানো যায়।

৫. মেডিটেশন বা ধ্যান
এই বিষয়টা অনেকভাবে ভাবা যায়। কোন বিষয় নিয়ে একাগ্রচিত্তে চিন্তা করা/ ধ্যান করা। সংকল্প করা।

৬. পর্যাপ্ত ঘুম
শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় ঘুমটুকু ঘুমিয়ে নিতে হবেই। কম ঘুম = দ্রুত অসুস্থ হওয়া। ভালো ঘুমাতে পারলে ভালো চিন্তা করা যায়। কর্মঠ থাকা যায়। কম ঘুমের কারণে উল্টা পাল্টা আচরণ মানুষ করে।

৭. নিজেকে চ্যালেঞ্জ করা
কিছু শেখা। শেখার মাধ্যমে নিজেকে চ্যালেঞ্জে রাখা। ভাষা শেখা যেতে পারে। অন্য ভাষা শিখতে গেলে মন শার্প হয়। সংগীত শিখার চেষ্টা বুদ্ধিমত্তা বৃদ্ধির সহায়ক। মূল কথা, দিনের অল্প সময় নতুন কিছু শেখার চেষ্টা করা। শেখার জন্য সময় দেয়া।

৮. হাসি
হা হা করে হেসে উঠতে পারা অনেক ভালো গুণ। হাসি খুশি থাকা। হাসির নানা রকম ভালো দিক রয়েছে। হাসির মাধ্যমে আপনি সবার সাথে ভালো সম্পর্ক তৈরি তো করতে পারবেনই একই সাথে হাসি হৃদপিন্ডের ব্যায়াম ফুসফুসের ব্যায়ামও। হাসি দৈনিক ভিটামিন!

৯. স্পর্শ
স্পর্শ চাপমুক্তির সহায়ক। কোলাকুলি কড়া, জড়ায় ধরা মানুষকে সুখী করে। স্পর্শ বিষয়ক আরো বিস্তারিত পড়াশুনা আছে পড়াশুনা করে জেনে নিবেন। 😛

১০. আশাবাদী হওয়া
সবশেষের কথাটি হল, আশাবাদী থাকা। আশাবাদী থাকার সুফলও অনেক।

বিস্তারিত লিংক: টাইম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *